কলকাতার ১০টি বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান

রসগোল্লা হোক বা সন্দেশ, অথবা শেষ পাতে বাঙালির প্রিয় মিষ্টি দই, আমাদের ‘সিটি অফ জয়’ মিষ্টির জগতে নিজের এক বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে। এই কলকাতা শহরের বুকে বহু প্রাচীন বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান আজও আমাদের রসনা তৃপ্তির খেয়াল রেখে চলেছে। এছাড়া আরও অনেক নতুন মিষ্টির দোকান নিজেদের ঠিকানা হিসেবে বেছে নিয়েছে এই শহরকে। আজ আমার লেখনীতে মিষ্টি প্রেমী বাঙালিদের জন্য রইল কলকাতার ১০টি বিশিষ্ট মিষ্টির দোকানের নাম ও ঠিকানা সহ সংক্ষিপ্ত বিবরণী।

ভীম চন্দ্র নাগ

১৮২৬ সালে হুগলী জেলার জনাই নিবাসী পরাণ চন্দ্র নাগের হাত ধরে এই প্রাচীন মিষ্টির দোকানটি কলকাতা শহরে নিজের যাত্রা শুরু করে। পরবর্তীকালে বিখ্যাত ভীম চন্দ্র নাগ তাঁর পিতার  বৌবাজারের এই মিষ্টির দোকানের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। মিষ্টির ইতিহাসের পাতায় কড়াপাকের মিষ্টির সাথে তাঁর নাম ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে। ১৮৫৬ সালে তৎকালীন গভর্নর জেনারেলের স্ত্রী লেডি ক্যানিং- এর জন্মদিন উপলক্ষ্যে ভীম চান্দ্র নাগ তৈরি করেছিলেন একটি নতুন ভাজা মিষ্টি, যার স্বাদ লেডি ক্যানিং- এর মন জয় করে নিয়েছিল। লেডি ক্যানিংকে সম্মান জানিয়ে ভীম নাগ এই মিষ্টির নাম রেখেছিলেন “লেডি ক্যানিং”, যা বর্তমানে লোকমুখে লেডিকেনি নামে পরিচিতি লাভ করে।

বর্তমান ভীম চন্দ্র নাগের পান্তুয়া এখানকার বিখ্যাত মিষ্টিগুলির তালিকায় সর্ব প্রথম স্থান অর্জন করে নিয়েছে। এছাড়া প্যাঁড়া বা ক্ষীরের পুতুলের মতো সাবেকি মিষ্টির পাশাপাশি নতুন প্রজন্মের পেস্তা সন্দেশ, স্ট্রবেরি সন্দেশের মতো ফিউশনাল নানান ধরণের মিষ্টি আপনি পেয়ে যাবেন এই প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানটিতে।

ঠিকানা: ৫, নির্মল চন্দ্র স্ট্রিট, কলকাতা ৭০০ ০১২ (বৌবাজারের মোড়ের কাছে)

গিরিশ চন্দ্র দে ও নকুর চন্দ্র নন্দী

১৮৪৪ সালে গিরিশ চন্দ্র দে ও নকুর চন্দ্র নন্দী এই মিষ্টির দোকানটি প্রতিষ্ঠা করেন। এখানকার জলভরা, শাঁখ সন্দেশ, কাঁচাগোল্লা কলকাতা সহ সারা ভারতবর্ষে বিখ্যাত। এই প্রাচীন মিষ্টির দোকানটি তার নরম পাকের সন্দেশের জন্য মানুষের মনে একটি বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে। বিবেকানন্দ থেকে শুরু করে সত্যজিৎ রায় সহ চলচ্চিত্র জগতের বহু বিশিষ্ট তারকারা এই দোকানের সন্দেশের বড় ভক্ত। এই মিষ্টিরদোকান থেকেই নাকি অভিষেক বচ্চনের বিয়ের অনুষ্ঠানের সমস্ত সন্দেশ পারি দিয়েছিল সুদূর মুম্বাইতে।

ঠিকানা: ৫৬, রামদুলাল সরকার স্ট্রিট, কলকাতা ৭০০ ০০৬ (হেদুয়ার বেথুন কলেজের কাছে)

নবীন চন্দ্র দাস

১৮৬৪ সালে নবীন চন্দ্র দাস বাগবাজারে এই মিষ্টির দোকানটি প্রতিষ্ঠা করেন। তাঁর হাত ধরেই জন্ম নেয় বাঙালির সবচেয়ে প্রিয় মিষ্টি রসগোল্লা, বর্তমানে যা বিশ্বব্যাপী খ্যাতি অর্জন করেছে। নবীন চন্দ্র দাসের নাম তাঁর সর্বকালের সেরা সৃষ্টি রসগোল্লার জন্য মিষ্টির ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে। এই সুস্বাদু রসালো মিষ্টিটির আবিষ্কর্তা হিসেবে তিনি “রসগোল্লার কলম্বাস” -এর আখ্যা পেয়েছিলেন।

ঠিকানা: ৭৭, যতীন্দ্রমোহন অ্যাভেনিউ, কলকাতা ৭০০ ০০৫ (শোভাবাজার)

কে সি দাস

রসগোল্লার আবিষ্কর্তা নবীন চন্দ্র দাসের পুত্র কৃষ্ণ চন্দ্র দাস ও তার নাতি সারদাচরণ দাস কোলকাতার ধর্মতলায় এই মিষ্টির দোকানটি প্রতিষ্ঠা করেন। এনারা বাঙালিকে তার ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি রসগোল্লার সাথে আরও একটি নতুন সংস্করণ উপহার দেন, আর সেটি হল রসমালাই। রসগোল্লার সেই সনাতন স্বাদ বহাল রেখে যুগের সাথে তালে তাল মিলিয়ে স্ট্রবেরি রসগোল্লা, চকলেট রসগোল্লার মতো বিভিন্ন ধরণের ফিউশনাল রসগোল্লাও বর্তমানে এখানে তৈরি করা হয়।  এছাড়া গুড় রায়টাকলি, গুড়ের শঙ্খ, গুড়ের তালশাঁস ও অমৃতকুম্ভ এখানকার শীতকালীন সেরা মিষ্টির তালিকায় নিজেদের জায়গা করে নিয়েছে।

ঠিকানা: ১১ এ এবং বি, সেন্ট্রাল অ্যাভেনিউ, কলকাতা ৭০০ ০৬৯ (ধর্মতলা মোড়ের কাছে)

সেন মহাশয়

বর্ধমানের বিখ্যাত সীতাভোগ আর মিহিদানার সেই অপূর্ব স্বাদ আপনি যদি কলকাতার বুকে পেতে চান তাহলে অতি অবশ্যই পৌঁছে যান সেন মহাশয়ে। সীতাভোগ আর মিহিদানার যুগলবন্দীর সাথে সাথে মনোহরা, দরবেশ, সন্দেশ ও মালাই চপের জন্যও সেন মহাশয় যথেষ্ট খ্যাতি লাভ করেছে। ১৮৬৬ সাল থেকে এই সমস্ত রাজকীয় মিষ্টির সম্ভার নিয়ে বাঙালির মনে এক অনন্য জায়গা করে নিয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটি।

ঠিকানা: ১/১সি শিবদাস ভাদুড়ি স্ট্রিট, শ্যামবাজার, কলকাতা- ৭০০ ০০৪।

এছাড়াও কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে এদের বহু শাখা ছড়িয়ে আছে।

বলরাম মল্লিক ও রাধারমণ মল্লিক

১৮৮৫ সাল থেকে বলরাম মল্লিক ও রাধারমণ মল্লিকের হাত ধরে এই বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান তার পথ চলা শুরু করে। এই প্রতিষ্ঠানটি সময়ের সাথে সাথে নতুন ধরণের মিষ্টি তৈরির মাধ্যমে এই সুদীর্ঘ পথ সুনামের সাথে অনায়াসেই অতিক্রম করে এসেছে। বেশ কয়েকবার কলকাতার সেরা মিষ্টির দোকানের খেতাবও জিতে নিয়েছে বলরাম মল্লিক ও রাধারমণ মল্লিক। বাঙালিদের পছন্দের মিষ্টির তালিকায় ফিউশনাল চকলেট মিষ্টির ঠাঁই করে দিয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়াও নলেন গুড়ের সন্দেশ, ছানার সন্দেশের মতো চিরাচরিত বাঙালি মিষ্টিও আপনি এখানে পেয়ে যাবেন।

ঠিকানা :  ২, পদ্মপুকুর রোড, ভবানীপুর, কলকাতা- ৭০০ ০২০।

এছাড়াও কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে এদের বহু শাখা ছড়িয়ে আছে।

চিত্তরঞ্জন মিষ্টান্ন ভাণ্ডার

১৯০৭ সালে নর্থ কলকাতায় হিরালাল ঘোষ চিত্তরঞ্জন মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের প্রতিষ্ঠা করেন। বিখ্যাত স্পঞ্জি রসগোল্লার জন্য চিত্তরঞ্জন মিষ্টান্ন ভাণ্ডার কলকাতা শহরের বুকে একটি বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এই রসগোল্লার বিশেষত্ব হল, এর রস চিপে বার করে নিলেও আবার এটি আগের মতো ফুলে ওঠে এবং ওজনেও এটি বেশ হালকা। এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের সন্দেশ ও রসের মিষ্টিও এখানে পাওয়া যায়। স্পঞ্জি রসগোল্লার সাথে সাথে এখানকার গোলাপজামের স্বাদও অতুলনীয়।

ঠিকানা : এভি স্কুল, শ্যামবাজার স্ট্রিট, কলকাতা- ৭০০ ০০৫ (হাতিবাগানের কাছে)

মিঠাই

বাঙালিদের খাবারের শেষ পাতে মিষ্টি দই না হলে ঠিক জমে না। আর সেই মিষ্টি দই-এর জন্য বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান হিসেবে ১৯৫৫ সাল থেকে মিঠাই কলকাতার বুকে নিজের একটি বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে। এই দইয়ের ওপরে থাকে একটি পুরু মাখনের প্রলেপ। অল্প মিষ্টি যুক্ত এই দই মুখে দিলে আপনার মন ভরে যাবে। মিঠাইয়ের সেরা মিষ্টিগুলির তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে চমচম। মিষ্টির সাথে সাথে নোনতা কিছু খেতে চাইলে এখানকার কচুরি ও গরম গরম সিঙ্গারা একবার ট্রাই করে দেখতে পারেন।

ঠিকানা : ৪৮বি, সৈয়দ আমির আলী অ্যাভিনিউ, বালিগঞ্জ, কলকাতা- ৭০০ ০১৭ ( বেক বাগানের কাছে)

বাঞ্ছারাম

১৯৭৬ সালে একটি ছোট্ট মিষ্টির দোকান থেকে পথ চলা শুরু করেন বাঞ্ছারাম ঘোষ। তারপর থেকে বাঞ্ছারাম ঘোষের আর পিছনে ফিরে তাকাবার প্রয়োজন হয়নি। কলকাতার প্রথম সারির মিষ্টির দোকানগুলির মধ্যে এই প্রতিষ্ঠানটি অন্যতম। বাঞ্ছারাম তার জিভে জল এনে দেওয়া বেকড রসগোল্লার জন্য বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান হিসেবে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। এছাড়াও  এখানকার সুস্বাদু ভ্যানিলা ও স্ট্রবেরি সন্দেশের খ্যাতিও কিছু কম নয়।

ঠিকানা: বি/৪, বাঘা যতীন মার্কেট কমপ্লেক্স, যাদবপুর, কলকাতা- ৭০০ ০৯২।

এছাড়া কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে এদের বহু শাখা ছড়িয়ে আছে।

মৌচাক

বিগত বহু বছর ধরে এই প্রতিষ্ঠানটি তার সুস্বাদু মিষ্টির জন্য মিষ্টি প্রেমীদের কাছে খুবই জনপ্রিয়। কলকাতা শহরের সেরা ছানার জিলিপির ঠিকানা মানেই মৌচাক। এছাড়াও এখানকার শঙ্খ সন্দেশ, নলেন গুড়ের সন্দেশ, পান্তুয়া ও মিষ্টি দই-এর স্বাদও মুখে লেগে থাকার মতো।

ঠিকানা: ২, সূর্য সেন স্ট্রিট, কলেজ স্কোয়ার, কলকাতা- ৭০০ ০০৯।

এছাড়াও কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে এদের বহু শাখা ছড়িয়ে আছে।

এছাড়াও কলকাতা শহরের বিভিন্ন অলিতে গলিতে বহু বিশিষ্ট মিষ্টির দোকান নিজেদের আস্তানা গড়ে তুলেছে। সেই তালিকায় রয়েছে পুঁটিরাম, কামধেনু, শ্রীহরি মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের মতো বহু নামকরা প্রতিষ্ঠান।

Author

Moumita Sadhukhan

A big foodie and a fun-loving person, love to explore the beauty of nature and want to introduce Indian cultural heritage to the future generation. 

No tags for this post.

Please share your valuable comments and feedback

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: